মহসীন আহমদ ওরফে মহসীন মাষ্টার

চাঁপাইনবাবগঞ্জের সাংবাদিকতা জগতের পথিকৃত, প্রথিতযশা সাংবাদিক ও লেখক- মহসীন আহমদ ওরফে মহসীন মাষ্টার ১৯১৬ সালে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার মনাকষা ইউনিয়নের রাণীনগরের হাঙ্গামী গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম কবির ম-ল। এপিপি, রয়টার্সসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ও জাতীয় সংবাদ সংস্থায় কাজ করেছেন প্রখ্যাত এই চারণ সাংবাদিক। দৈনিক ইনকিলাব, দৈনিক আজাদের নবাবগঞ্জ প্রতিনিধি হিসেবেও কাজ করেছেন তিনি।
১৯৬৩ সালের শেষের দিকে শিবগঞ্জের সাংবাদিক মহসীন আহমেদ, নবাবগঞ্জের সাংবাদিক মজিবুর রহমান (তারু মিঞা), সাংবাদিক আব্দুল মতিন, সাংবাদিক শাহজাহান, সাংবাদিক মোহিত কুমার দাঁ, সাহিত্যিক-গবেষক- আ.কা.ম.শেখ নুর মোহাম্মদ (নবাবগঞ্জ মহকুমার তৎকালীন জনসংযোগ অফিসার) এবং শেখ নুর মোহাম্মদ সাহেবের সহধর্মীনি বেগম আজিজা এন মোহাম্মদ প্রমুখদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় চাঁপাইনবাবগঞ্জে সর্বপ্রথম সাংবাদিকদের সংগঠন-‘নবাবগঞ্জ মহকুমা সাংবাদিক সমিতি’ গঠিত হয়। যা পরবর্তীতে ‘নবাবগঞ্জ প্রেসক্লাবে’ রুপান্তরিত হয়। সাংবাদিক মহসীন আহমেদ ছিলেন এ সংগঠনের উদ্যোক্তা-অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা। মহসীন আহমদরাই মূলত চাঁপাইনবাবগঞ্জে সাংবাদিকতার গোড়াপত্তন করেন।
শুধু সাংবাদিক নয়, তিনি সেই সময়কার একজন খ্যাতিমান লেখক এবং পন্ডিত ছিলেন। বাংলাসহ বিবিধ বিষয়ে অগাধ জ্ঞান তাঁকে গড়ে তুলেছিল অত্রাঞ্চলের মধ্যে তৎকালীন সময়ের অন্যতম শ্রেষ্ঠ পন্ডিত। দীর্ঘদিন তিনি শিবগঞ্জের হেমায়েত মেমোরিয়াল হাই স্কুলের হেড পন্ডিত ছিলেন। কর্মবীর- ইদ্রিশ আহমেদ (চাঁপাইনবাবগঞ্জের আলোকিত ও গুণি ব্যক্তিত্ব) স্মরণে তিনি লিখেছিলেন ‘ধুলাই যিনি গড়লেন তাজ’ নামক একটি জীবনীগ্রন্থ। এছাড়া ‘রাজশাহী বিভাগের ইতিহাস’সহ বেশ কয়েকটি গ্রন্থ রচনা করে লেখক হিসেবে সেই সময় ব্যাপক খ্যাতি অর্জন করেন সাহিত্যিক মহসীন আহমদ। ১৯৯৩ সালে প্রথিতযশা সাংবাদিক মহসীন আহমদ মৃত্যুবরণ করেন। { অসমাপ্ত…/ বিস্তারিত প্রকাশিতব্য মূল গ্রন্থ- ‘আলোকিত চাঁপাইনবাবগঞ্জ’ (চাঁপাইনবাবগঞ্জের দু’শো বছর ইতিহাসের বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সংক্ষপ্তি জীবনী)}